728X90

0

0

0

এই অনুচ্ছেদে

পিঠে কি শুধুই খেতে ভাল? নাকি স্বাস্থ্যগুণও ভরপুর? কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা?
55

পিঠে কি শুধুই খেতে ভাল? নাকি স্বাস্থ্যগুণও ভরপুর? কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা?

শীত বিদায় নেওয়ার পালা। বাঙালি তাই যত পারছে, পিঠে খেয়ে নিচ্ছে। কিন্তু এই পিঠে কি শুধুই খেতে ভাল? এর কোনও স্বাস্থ্য উপকারিতা নেই? কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা?

পৌষ সংক্রান্তি পার করে মাঘ মাসও বিদায় নিতে চলেছে। কিন্তু এই শীতকালে বাঙালির ঘরে-ঘরে পিঠে খাওয়াটা শুধুই সংক্রান্তির দিনের ব্র্যাকেটে আবদ্দ থাকে না। গরম পড়ার আগে যতগুলো দিন সম্ভব, বাঙালি পিঠেতে মজে থাকে! বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে তৈরি হয় হরেক কিসিমের পিঠে। হ্যাঁ, এটা ঠিক যে বেশিরভাগ বাড়িতেই খোঁজ করলে হয়তো দেখা যাবে, ভাজা পিঠেই তৈরি হচ্ছে। কিন্তু তাকে যোগ্য সঙ্গ দিতে থাকে আরও নানারকমের পিঠে, যেগুলি সত্যিই স্বাস্থ্যকর। এখন প্রশ্নটা হচ্ছে, যুগ-যুগান্তর ধরে বাঙালি বাড়িতে যে পিঠে বানানো হয়, তা খাওয়া হয়, এমনকি লোক নিমন্ত্রণ করেও পিঠে খাওয়ানো হয়, তা কি স্রেফ একটা রীতি বা স্বাদবদল? নাকি পিঠে আমাদের শরীরের উপকারে লাগে?

পিঠের স্বাস্থ্য-উপকারিতা

পিঠে যে সব উপকরণ দিয়ে তৈরি হয়, সেগুলি যদি দেখেন তাহলে লক্ষ্য করবেন, স্বাস্থ্যগুণে ঠাসা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আগেকার দিনে ফাস্টফুড বা জাঙ্কফুড বলে তো কিছু ছিল না। পিঠে যেমন মানুষের স্বাদ বদলাতো, তেমনই এর অনেক পুষ্টিগুণও ছিল বলে এতটা আড়ম্বরে লোকজনকে ডেকে খাওয়ানো হত। কার্ডিওলজিস্ট ডাঃ কবীর দত্ত বললেন, “পিঠের অনেক গুণ রয়েছে। নগরজীবনে পিঠের গুরুত্ব অনেকটা কমেছে ঠিকই। কিন্তু ফাস্টফুডে আসক্ত বাড়ির বাচ্চার মন যদি পিঠের স্বাদে ভোলাতে পারেন, তাহলে সে আর চিকেন পকোড়া-এগরোল খেতে চাইবে না।”

তাই, একথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে শুধু বাংলা কেন এ দেশে খাবারকে ঘিরে যে রীতি তৈরি হয়েছে বা রীতিকে ঘিরে যে খাবার তৈরি করা হয়, তার কিছু না কিছু স্বাস্থ্যগুণ থাকবেই। কারণ, আগেকার দিনে ফাস্টফুডেরও এতটা রমরমা ছিল না। এখন পিঠে সে যেমনই হোক না কেন, ঝাল পিঠে থেকে মিষ্টি পিঠে তার বেশিরভাগেই ব্যবহৃত হয় চালের গুঁড়ো। অনেকে আবর আটা বা ময়দা দিয়েও পিঠে তৈরি করেন। আবার এই শীতকালেই নলেন গুড়ও বাজারে আসে। সেই পিঠের মধ্যে পড়ে নলেন গুড়। তা-ও যে যথেষ্ট উপকারী। কিছু পিঠে আবার নলেন গুড় দিয়েই খাওয়া হয়। শুধু তাই নয়। পিঠের ভিতরে যে পুর বা স্টাফিং দেওয়া হয়, তা কখনও নারকেল কুরো দিয়ে, কখনও আবার স্বাস্থ্যকর অন্য উপাদান দিয়ে তৈরি করা হয়।

ক্লিনিকাল নিউট্রিশনিস্ট অ্যান্ড ওয়েলনেস কনসালটান্ট ডাঃ অনন্যা ভৌমিকের কথায়, “বেশিরভাগ বাঙালিই পিঠে তৈরি করেন চালের গুঁড়ি দিয়ে। অনেকে আবার দুধপুলি তৈরি করেন, যাতে দুধের পরিমাণ অনেকটা করে থাকে। সেই দিক থেকে দেখতে গেলে পিঠে সংক্রান্ত যে কোনও খাবারে যথেষ্ট পরিমাণ ক্যালোরি থাকে। এখন কেউ যদি ওয়েট লস করার ডায়েটে থাকেন, তাঁর জন্য পিঠে বা দুধপুলি কখনই ভাল নয়। কিন্তু শীতের দু’একটা দিন পিঠে খেলে কোনও খারাপ প্রভাব পড়বে না। চাল যে ভাবে গুঁড়ি করা হয়, তা মানুষের শরীরের জন্য কখনও খারাপ হতে পারে না। আর একটা পিঠের মধ্যে চাল গুঁড়ির পরিমাণ বিরাট একটা থাকে না। তারপরে আবার এই শীতকালে নতুন চালও ওঠে, সেটাও আমাদের শরীরের জন্য যথেষ্ট ভাল।”

তিনি আরও বললেন, “বাইরে আমরা চকোলেট, কেক বা অন্যান্য যে সব প্যাকেটজাত খাবার খাই, তার মধ্যে তো অনেক প্রিজ়ারভেটিভ থাকে। সেই জায়গা থেকে দেখতে গেলে সংক্রান্তির দিনে স্বাদ বদলের জন্য পিঠে খাওয়া কারও পক্ষে কোনও সমস্যার সৃষ্টি করে না। অন্তত বাইরের প্যাকেটজাত খাবার বা ফাস্টফুডের থেকে অনেক ভালো। বাচ্চা থেকে বুড়ো সকলেই পিঠে খেতে পারে। তবে ডায়বেটিক বা ওজন কমাচ্ছেন যাঁরা, তাঁদের বেশি পিঠে খাওয়া চলবে না। আসলে পিঠে বানানো এবং তা খাওয়া যে একপ্রকারের সেলিব্রেশন। সেটাকে বাদ দিলে মনটাই বা ভালো থাকবে কী করে!”

কোন পিঠা স্টাফিং বেশি স্বাস্থ্যকর

পিঠেকে আর একটু স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে খাওয়ার কথাও বললেন ডাঃ অনন্যা ভৌমিক। তাঁর বক্তব্য, “পিঠের ভিতরে আপনি ক্ষির, মিষ্টি বা যে কোনও দুধের পুর না দিয়ে তার পরিবর্তে যদি নারকেলের স্টাফিং দেন, তাহলে শরীরের জন্য ভাল। এর মধ্যে তখন MCT বা মিডিয়াম চেইন ট্রাইগ্লিসারাইড ঢুকে যাচ্ছে, যার অনেক গুণ রয়েছে। তাছাড়া নারকেল মানুষের শরীরের অনেক দিক থেকেই কার্যকর। ফলে, দুধের পুর দিলে আপনি যেমন ক্যালসিয়াম ও প্রোটিন পাচ্ছেন, তেমনই আবার নারকেলের পুর দিলেও তার মধ্যে রয়েছে অনেক গুণাবলী।”

সুস্বাস্থ্যের চাবিকাঠি

সুতরাং, পেটে খেলে পিঠে সয় ঠিকই। তেমনই আবার পিঠে খেলে পেটেও সয়! হেঁয়ালি করছি না বিশ্বাস করুন। মরসুমি যা কিছু জানবেন, আপনার শরীরের কথা ভেবেই দিনের পর দিন ধরে তৈরি হয়ে আসছে। শীতে কমলালেবুও যেমন আপনার জন্য ভাল, তেমনই আবার পিঠে খেলেও তা যথেষ্ট স্বাস্থ্যসম্মত। এখন, আপনি যাই খান না কেন, তার পরিমাণটা আপনাকেই ঠিক করে নিতে হবে।

আপনার অভিজ্ঞতা বা মন্তব্য শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

বহুল চর্চিত

প্রবন্ধ

প্রবন্ধ
দাঁত এবং মাড়ির স্বাস্থ্য খারাপ হলে সংক্রামক এন্ডোকার্ডাইটিস হতে পারে অর্থাৎ হার্ট ভালভের আস্তরণের ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ। 
প্রবন্ধ
যোগায় হস্তমুদ্রা শুধুমাত্র ভঙ্গিমা নয়, প্রতিটি মুদ্রার নিজস্ব স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে।
প্রবন্ধ
আপনার হৃদয় যে সুস্থ আছে তা জানান দেওয়ার পূর্বলক্ষণ হল HDL কোলেস্টেরলের সঠিক  মাত্রা। আমরা খুঁজে দেখব কেন HDL -কে 'ভাল কোলেস্ট্রল' বলা হয়
প্রবন্ধ
কড়া এড়াতে নিয়মিত পা পরিষ্কার করা এবং ময়শ্চারাইজিং করাও দরকার। পা পরিষ্কার থাকলে, কেলাস তৈরি হলেও, কর্ণ বা কড়ায় পরিণত হওয়ার আগেই তা চলে যায়। 
প্রবন্ধ
প্রাণায়ামের সঠিক পদ্ধতির মধ্যে লুকিয়ে আছে সুস্থ জীবনের চাবিকাঠি। শুধুমাত্র সঠিক শ্বাস-প্রশ্বাসের এই পদ্ধতি হতে পারে অনেক সমস্যাকে দূর করার সহজ কৌশল। আসুন জেনে নিন বিশদে এই বিষয়টি সম্পর্কে এখানে ক্লিক করে।
প্রবন্ধ
মধুমেহ সমস্যায় যারা ভুগছেন তাঁদের পুজোয় সঠিক পরিমাণে প্রোটিন এবং ফাইবার জাতীয় খাবার খাওয়া উচিত সাথে কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার যেমন সাদা ভাত খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।

0

0

0

Opt-in To Our Daily Newsletter

* Please check your Spam folder for the Opt-in confirmation mail

Opt-in To Our
Daily Newsletter

We use cookies to customize your user experience, view our policy here

আপনার প্রতিক্রিয়া সফলভাবে জমা দেওয়া হয়েছে.

হ্যাপিস্ট হেলথ টিম যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আপনার কাছে পৌঁছাবে।